শিরোনাম

প্রচ্ছদ রাজনীতি, শিরোনাম

ঢাকার দুই সিটি নির্বাচন

দক্ষিণে ব্যারিস্টার-প্রকৌশলী, উত্তরে দুই ব্যবসায়ীর লড়াই

এনা অনলাইন : | রবিবার, ২৯ ডিসেম্বর ২০১৯ | সর্বাধিক পঠিত

দক্ষিণে ব্যারিস্টার-প্রকৌশলী, উত্তরে দুই ব্যবসায়ীর লড়াই

রাজধানী ঢাকার দুই সিটি, উত্তর ও দক্ষিণ, নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে উত্তর অংশে নৌকার মনোনয়ন পাচ্ছেন ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) থেকে ধানের শীষ নিয়ে তার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন। দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে দুই ব্যবসায়ীর মধ্যে আওয়ামী লীগ থেকে আতিকুল ইসলাম ও বিএনপি থেকে তাবিথ আউয়াল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন।

ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন ডিএসসিসিতে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেলেন যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা শেখ ফজলুল হক মনির সন্তান, ধানমণ্ডি ও হাজারীবাগ এলাকার সংসদ সদস্য শেখ ফজলে নূর তাপস এবং ডিএনসিসিতে বর্তমান মেয়র ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আতিকুল ইসলাম।



অন্যদিকে ডিএসসিসিতে বিএনপির মনোনয়ন পেয়েছেন প্রয়াত মেয়র সাদেক হোসেন খোকার ছেলে ইশরাক হোসেন আর ডিএনসিসিতে মনোনয়ন পেয়েছেন আগের নির্বাচনের প্রার্থী ব্যবসায়ী তাবিথ আউয়াল। বাদ পড়েছেন বিএনপির এক সময়ের তুখোড় ছাত্রনেতা বিশেষ সম্পাদক আসাদুজ্জামান রিপন। ২৮ ডিসেম্বর, শনিবার রাতে উভয় দলের পক্ষ থেকে এই মনোনয়ন চূড়ান্ত করা হয়।

২৮ ডিসেম্বর, শনিবার সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে দলটির স্থানীয় সরকার নির্বাচন মনোনয়ন বোর্ডের এক সভায় মেয়র প্রার্থী চূড়ান্ত করতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ডিএনসিসির মেয়র পদে আওয়ামী লীগের গুরুত্বপূর্ণ তেমন কোনো নেতা দলীয় মনোনয়ন ফরম তোলেননি। কিন্তু ডিএসসিসিতে প্রার্থী বাছাইয়ে চাপে আছেন আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের নেতারা।

আওয়ামী লীগের সূত্রগুলো জানায়, শনিবার স্থানীয় সরকার বোর্ডের বৈঠকটি মুলতবি করা হয়েছে। আজ সকাল ১০টায় বৈঠকটি আবারও বসে। সেখানে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের আওয়ামী লীগের মেয়র ও কাউন্সিলর পদপ্রার্থীর তালিকা চূড়ান্ত হয়েছে। বৈঠক শেষে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেন।

শনিবার গণভবনে আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের বৈঠক শেষ হওয়ার একটু আগে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী শেখ ফজলে নূর তাপস গণভবনের সামনে অপেক্ষমাণ নেতাকর্মীদের কাছে আসেন। সেখানে উপস্থিত নেতাকর্মীরা এই দুই নেতাকে অভিনন্দন জানান, কোলাকুলি করেন ও সেলফি তোলেন।

এর আগের দিন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের জানিয়ে রেখেছিলেন, কোনো প্রার্থীকে মেয়র ও কাউন্সিলর পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ও সমর্থন দেওয়া হবে না। এ ক্ষেত্রে প্রার্থীদের জনপ্রিয়তা ও পরিচ্ছন্ন ভাবমূর্তিকে গুরুত্ব দেওয়া হবে।

এদিকে শনিবার রাতে রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে মেয়র পদে দুই প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এর আগে বিকেল সাড়ে ৪টায় বিএনপির মনোনয়ন বোর্ডের সদস্যরা বৈঠকে বসেন। বৈঠক শেষে মেয়র পদে তিন মনোনয়নপ্রত্যাশীর সাক্ষাৎ নেন তাঁরা।

মনোনয়ন বোর্ডের সদস্যদের মধ্যে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, জমির উদ্দিন সরকার, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, ড. আব্দুল মঈন খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু উপস্থিত ছিলেন।

কাউন্সিলর প্রার্থী বাছাইয়ে চ্যালেঞ্জের মুখে বিএনপি : দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রতিটি ওয়ার্ডে একক কাউন্সিলর প্রার্থী বাছাইয়ে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হচ্ছে বিএনপির দায়িত্বপ্রাপ্তদের। সংরক্ষিত ওয়ার্ডের নারী কাউন্সিলর পদেও একাধিক মনোনয়নপ্রত্যাশী থাকায় এ পদেও জটিলতা রয়েছে। ফলে যোগ্যদের মনোনয়ন দেওয়ার তাগিদে গঠন করা হয়েছে তিনটি প্রার্থী বাছাই কমিটি। তাদের তৈরি করা তালিকা পাঠানো হবে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কাছে। তিনিই চূড়ান্ত তালিকা করবেন। ফলে কাউন্সিলর পদে দলের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করতে আরো দু-এক দিন সময় লাগতে পারে। তবে প্রার্থী বাছাইয়ে স্বচ্ছতা বজায় রাখার নানা কৌশল নিয়েও শঙ্কা কাটছে না বিএনপিতে। কেননা কতিপয় নেতা অর্থের বিনিময়ে প্রার্থী হতে চাচ্ছেন। সেই সঙ্গে ত্যাগী নেতারা আশঙ্কা করছেন মনোনয়নবঞ্চিত হওয়ার। তাঁরা মনে করছেন, কেন্দ্রীয় নেতাদের দায়িত্ব দেওয়ায় সংকট কিছুটা কাটতে পারে।

প্রার্থী বাছাইয়ে তিনটি কমিটিতে রয়েছেন প্রধান সমন্বয়কারী ঢাকা উত্তরে দলের ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাজাহানের সঙ্গে ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল মিন্টু, যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, মহানগর উত্তর বিএনপির সভাপতি এম এ কাইয়ুম (মালয়েশিয়াপ্রবাসী), মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদ, মহানগর উত্তরের সিনিয়র সহসভাপতি মুন্সি বজলুল বাসিত আঞ্জু ও সাধারণ সম্পাদক আহসানউল্লাহ হাসান।

দক্ষিণের কমিটিতে রয়েছেন প্রধান সমন্বয়কারী বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালামের সঙ্গে ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাজাহান, আব্দুল আউয়াল মিন্টু, যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি হাবিব উন নবী খান সোহেল, মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস, মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার ও সহসভাপতি নবীউল্লাহ নবী। সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর বাছাই কমিটিতে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সেলিমা রহমানকে সমন্বয়কারী করা হয়েছে। সদস্য হিসেবে রয়েছেন মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস, সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদ, জেবা খান, অ্যাডভোকেট নিপুণ রায় চৌধুরীসহ ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ মহিলা দলের সভাপতি।

দলটির নেতাদের সঙ্গে আলাপকালে জানা গেছে, ঢাকার প্রতিটি ওয়ার্ডের বিপরীতে প্রায় তিন গুণ ফরম বিক্রি হয়েছে। এর মধ্যে নতুন মুখের সংখ্যা বেশি। বিগত দিনে বিএনপির সমর্থনকারী ওয়ার্ড কাউন্সিলররা বয়সের ভারে কর্মসূচিতে অংশ নিতে পারছেন না। ফলে এবার তরুণ নেতাদের আগ্রহ বেশি।

আজ ২৯ ডিসেম্বর, রবিবার, নয়াপল্টনে ভাসানী ভবনে সকাল ৯টা থেকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার অনুষ্ঠিত হয়েছে। একই সময়ে গুলশান বিএনপির কার্যালয়ে উত্তরের সাক্ষাৎকার অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মহানগর উত্তরের দপ্তর সম্পাদক এ বি এম এ রাজ্জাক জানান, রবিবার বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে সকাল ৯টা থেকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) নির্বাচনে ১ নম্বর ওয়ার্ড থেকে ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের শুধু পুরুষ কাউন্সিলর পদে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলরদের সাক্ষাৎকারের বিষয়ে অ্যাডভোকেট নিপুণ রায় চৌধুরী বলেন, রবিবার দুপুর ২টায় বাছাই কমিটির নেতাদের বৈঠক চলছে। সাক্ষাতের তারিখ পরে জানানো হবে।

Comments

comments



আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯