শিরোনাম

প্রচ্ছদ শিক্ষা, শিরোনাম, স্লাইডার

ভিকারুননিসার অধ্যক্ষসহ তিন শিক্ষক বরখাস্ত

এনা অনলাইন : | বৃহস্পতিবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৮ | সর্বাধিক পঠিত

ভিকারুননিসার অধ্যক্ষসহ তিন শিক্ষক বরখাস্ত

ভিকারুননিসা নুন স্কুল এন্ড কলেজের ৯ম শ্রেণির ছাত্রী অরিত্রি অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে অধ্যক্ষসহ তিন শিক্ষককে বরখাস্তের সুপারিশ করা হয়েছে। ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনিন ফেরদৌস, প্রভাতী শাখার শিফ্ট ইনচার্জ জিনাত আক্তার এবং শ্রেণি শিক্ষক হাসনা হেনাকে বরখাস্তের সুপারিশ করেছে কমিটি। তদন্ত কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে শিক্ষা মন্ত্রণালয় স্কুল কর্তৃপক্ষকে উক্ত সুপারিশ বাস্তবায়নের নির্দেশ দিয়েছে।
এদিকে, বুধবার সন্ধ্যায় স্কুলের গভর্নিং কমিটির সদস্যরা অনানুষ্ঠানিক বৈঠকে মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত নিয়েছে এবং উক্ত তিন শিক্ষককে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। গভনিং কমিটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে উদ্ভুত পরিস্থিতি সক্ষাভাবিক করতে গতকাল ও বৃহস্পতিবার স্কুলের সকল শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। বুধবার স্থগিত হওয়া পরীক্ষা আগামী শুক্রবার অনুষ্ঠিত হবে। বৃহস্পতিবারের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে ১১ ডিসেম্বর। কলেজের ক্লাসসহ বার্ষিক পরীক্ষার সকল কার্যক্রম চলবে পূর্বের ঘোষণা অনুসারে। বৃহস্পতিবার ও শনিবার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। এ ছাড়া প্রতিষ্ঠানটির স্বার্থে অবিলম্বেই একজন অধ্যক্ষ নিয়োগ দেয়া হবে এবং প্রতিষ্ঠানিক তদন্ত কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।
অন্যদিকে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অধ্যক্ষের বরখাস্তসহ ছয় দফা দাবি মেনে নেয়ার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা না আসা পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে বিক্ষোভরত শিক্ষার্থীরা। অধ্যক্ষসহ তিন শিক্ষককে বরখাস্তে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনার পর বেলা পৌনে দুইটার দিকে শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে এ ঘোষণা আসে। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে গভর্নিং কমিটির চেয়ারম্যান গোলাম আশ্রাফ তালুকদার নয়া দিগন্তকে বলেন, আন্দোলনরত শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের সাথে বৃহস্পতিবার আলোচনা করে তাদের দাবী
২৪ ঘন্টা আগে গঠিত তদন্ত কমিটি তাদের প্রতিবেদন ও সুপারিশ মন্ত্রণালয়কে অবহিত করেছে জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বুধবার দুপুরে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফিং করেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এই প্রতিবেদনে দোষী ব্যক্তিদের চিহ্নিত করা হয়েছে। একই সাথে এ প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন অনিয়ম-অসংগতিও প্রতিবেদনে উঠে এসেছে। দীর্ঘদিন ধরে এ প্রতিষ্ঠানে অধ্যক্ষ নেই। এটি একটি বড় ধরনের অনিয়ম। নিয়মের বাইরে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হচ্ছে, সেকশন খোলা হচ্ছে। শাখা খোলার অনুমোদন নেই। তারপরও তারা শাখা খুলেছে। মন্ত্রী বলেন, অরিত্রির বাবা যখন আবেদন নিয়ে আসেন, তখন তাদের সাথে ভয়-ভীতি দেখানো হয়, তার বাবা-মার সাথে চিহ্নিত ৩ জন নির্দয় ব্যবহার-আচরণ করেছেন। বাবা-মার অসম্মান মেনে নিতে পারেনি বলে তাকে আত্মহত্যার পথ বেছে নিতে হয়েছে বলে তদন্ত কমিটির কাছে প্রতীয়মান, যার দায় কোনভাবেই তিনজন এড়াতে পারে না।

মন্ত্রী জানান, স্কুলের গভর্নিং বডিকেও এ তিনজনকে বরখাস্তের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলাসহ আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেয়া হবে। এছাড়া উক্ত তিনজন শিক্ষকের এমপিও বাতিলের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে মন্ত্রণালয়। হাইকোর্টের নির্দেশনা অনুযায়ী একজন অতিরিক্ত সচিবের নেতৃত্বে ৫ সদস্যের কমিটি গঠন করা হবে বলেও জানান শিক্ষামন্ত্রী।

র‌্যাব-পুলিশকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের চিঠি –
অরিত্রি অধিকারীর আত্মহত্যায় প্ররোচনাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে র‌্যাপিড অ্যাকশান ব্যাটেলিয়ানের (র‌্যাব) মহাপরিচালক এবং ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনারকে চিঠি পাঠিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। চিঠিতে অভিযুক্ত অধ্যক্ষসহ ৩ শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।
এছাড়া এ তিন শিক্ষকের এমপিও বন্ধে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এবং অভিযুক্তদের বরখাস্তসহ বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণে ঢাকা বোর্ড চেয়ারম্যানকেও পৃথক দুটি চিঠি পাঠানো হয়েছে। গতকাল শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একাধিক সূত্র নয়া দিগন্তকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

বৃহস্পতিবার ও শনিবার ক্লাস- বার্ষিক পরীক্ষা বন্ধ থাকবে
পরবর্তী ঘোষণা না দেয়া পর্যন্ত ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের সব ক্লাস ও বার্ষিক –পরীক্ষা বন্ধ ঘোষণা করা হয় গতকাল দুপুরের পর। স্কুলের গভর্নিং বডির শিক্ষক প্রতিনিধি মুশতারী সুলতানা অধ্যক্ষের কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ কথা জানান। তবে, গতকাল সন্ধ্যায় স্কুলের গভর্নিং কমিটির সদস্যরা অনানুষ্ঠানিক বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেন, আজ(বৃহস্পতিবার) এবং আগামী শনিবার স্কুলের উদ্ভুত পরিস্থিতি বিবেচনায় সকল ক্লাস ও বার্ষিক পরীক্ষা স্থগিত থাকবে। তবে, আগামী শুক্রবার বুধবার স্থগিত হওয়া বার্ষিক পরীক্ষা নেয়া হবে। রবিবার থেকে কলেজ শাখার সকল ক্লাস ও বার্ষিক পরীক্ষার যথা নিয়মে চলবে। আজকের স্থগিত পরীক্ষা ১১ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে।

দুপুরে শিক্ষক প্রতিনিধি মুশতারী বলেন, অরিত্রীর সহপাঠীরা যারা আন্দোলন করছে, তাদের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে ক্লাস ও পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। আমরা অরিত্রীর ঘটনায় গভীরভাবে শোকাহত। ছাত্রীরাও গভীরভাবে শোকাহত। তাদের বান্ধবী মারা গেছে, পড়াশোনা করতে পারছে না। এ কারণে পরীক্ষা বাতিল করেছি।

অধ্যক্ষ কোথায় জানতে চাইলে বলেন, তিনি অসুস্থ। গভর্নিং বডির সদস্যরা মিলে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। শিক্ষকদের বিরুদ্ধে কোচিং ও অভিভাবকদের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরন এবং শিক্ষার্থীদের সাথে বাজে ব্যবহারের অভিযোগ সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলে মুশতারী সাংবাদিকদের বলেন, এখানে ৭০০ জনের মতো শিক্ষক আছেন। ২ থেকে ৫ শতাংশ শিক্ষক কোচিং করেন। সবাই এ জন্য দায়ী নন। কারও বিরুদ্ধে লিখিত ও সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ থাকলে ব্যবস্থা নেয়ার সুযোগ রয়েছে।

গভর্নিং বডির পদত্যাগের দাবি বিষয়ে মুশতারী বলেন, এটি তো শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের ব্যাপার। এখানে কারো ব্যক্তিগত বা দলীয় কোন ব্যাপার নেই। মন্ত্রণালয় সিদ্ধান্ত নিলে সেটি তো বাস্তবায়ন হবে। এ ব্যাপারে কিছুই বলার নেই।
মুশতারী সুলতানা সাংবাদিকদের ডেকে কথা বলার সময় প্রতিষ্ঠানটির তিনটি ফটকে শিক্ষার্থীরা একযোগে অবস্থান ও দাবী আদয়ের জন্য শ্লোগান মুখর ছিল। তিনি জানান, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তিন ফটকের বাইরে অবস্থান নেয়া শিক্ষার্থীদের গিয়ে ক্লাস– পরীক্ষা বন্ধ করার বিষয়টি জানিয়ে আসেছি।

গতকাল সকাল থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বেইলি রোডের শাখার প্রধান ফটকসহ আরো দু’টি ফটকে বিক্ষোভ করে কয়েক শ’ শিক্ষার্থী। তাদের সঙ্গে যোগ দেন অনেক অভিভাবক।

এদিকে গতকাল মঙ্গলবার মেয়েকে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেয়ার অভিযোগে অধ্যক্ষ-শিক্ষকসহ এই তিনজনকে আসামি করে পল্টন থানায় মামলা করেন অরিত্রীর বাবা দিলীপ অধিকারী।

দিলীপ অধিকারীর অভিযোগ, রোববার পরীক্ষা চলাকালে শিক্ষক অরিত্রীর কাছে মোবাইল ফোন পান। মোবাইলে নকল করেছে, এমন অভিযোগে অরিত্রীকে সোমবার তার মা-বাবাকে নিয়ে স্কুলে যেতে বলা হয়। তিনি স্ত্রী ও মেয়েকে নিয়ে সোমবার স্কুলে গেলে ভাইস প্রিন্সিপাল তাঁদের অপমান করে কক্ষ থেকে বের হয়ে যেতে বলেন। মেয়ের টিসি (স্কুল থেকে দেয়া ছাড়পত্র) নিয়ে যেতে বলেন। পরে প্রিন্সিপালের কক্ষে গেলে তিনিও একই রকম আচরণ করেন। এ সময় অরিত্রী দ্রুত প্রিন্সিপালের কক্ষ থেকে বের হয়ে যায়। পরে বাসায় গিয়ে তিনি দেখেন, অরিত্রী তার কক্ষে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ওড়নায় ফাঁস দেয়া অবস্থায় ঝুলছে।

অরিত্রীদের শান্তিনগরের বাসা থেকে তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সোমবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে চিকিৎসকেরা অরিত্রীকে মৃত ঘোষণা করেন।

দাবি মেনে না নেয়া পর্যন্ত বিক্ষোভ চালিয়ে যাবে শিক্ষার্থীরা
অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনায় কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অধ্যক্ষের বরখাস্তসহ ছয় দফা দাবি মেনে নেয়ার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা না আসা পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে বিক্ষোভরত শিক্ষার্থীরা। অধ্যক্ষসহ তিন শিক্ষককে বরখাস্তে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনার পর বেলা পৌনে দুইটার দিকে শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে এ ঘোষণা আসে।
শিক্ষার্থীদের পক্ষে আনুশকা রায় সাংবাদিকদের বলেন, আমরা শুনেছি, আমাদের কিছু দাবি মেনে নেয়া হয়েছে। আমরা আমাদের অধ্যক্ষ বা মুখপাত্রের পক্ষ থেকে এ সংক্রান্ত আনুষ্ঠানিক ঘোষণা চাই। আনুষ্ঠানিক ঘোষণা না আসা পর্যন্ত আমাদের অবস্থান চলতে থাকব।

আরেক ছাত্রী নেত্রী মুন  বলেন, আমরা আসলে এ ঘটনায় দায়ীদের শাস্তির নিশ্চয়তা চাই। তা হলেই কেবল ছাত্রীরা তাদের অবস্থান কর্মসূচী স্থগিত করতে পারে।

শিক্ষার্থীদের ছয় দফা দাবির মধ্যে রয়েছে অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌসকে বরখাস্ত এবং আত্মহত্যার প্ররোচনার কারণে ৩০৫ ধারায় শাস্তি, কোনো শিক্ষার্থীকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করা হবে না — এমন নিশ্চয়তা প্রদান, কথায় কথায় শিক্ষার্থীদের ট্রান্সফার সার্টিফিকেট দেয়া ও দেয়ার হুমকি না দেয়া, শিক্ষার্থীদের মানসিক সুস্থতার জন্য প্রত্যেক ক্লাসে মনোবিদ নিয়োগ, গভর্নিং বডির পদত্যাগ এবং আন্দোলনকারী কারও বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা না নেয়া।

গত দু’দিনের মতো বুধবারও সকাল থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বেইলি রোডের শাখার প্রধান ফটকে বিক্ষোভ শুরু করে কয়েক শ শিক্ষার্থী। তাদের সাথে যোগ দেন অনেক অভিভাবক। জানা গেছে, ভিকারুন নিসার সাবেক ছাত্রীরা এ আন্দোলনে সক্রিয় রয়েছেন। তাদের একজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে নয়া দিগন্তকে বলেন, আমরা ছোট বোনদের পাশে রয়েছি।

আন্দোলন সম্পর্কে স্কুল গভনির্ং কমিটির চেয়ারম্যান গোলাম আশ্রাফ তালুকদার বলেন, শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের অধিকাংশ দাবীই মেনে নেয়া হয়েছে। তাদের এখন ক্লাসে ও পরীক্ষায় ফিরে যাওয়া উচিৎ। তারা কথা বলতে চাইলে আমরা সব সময়ই কথা শুনব এবং সব সময়ই শুনেছি।

Comments

comments

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০